1. mahbubur2527@gmail.com : Mahbubur Rahman Sohel : Mahbubur Rahman Sohel
  2. saidur.yc@gmail.com : SAIDUR RAHMAN : SAIDUR RAHMAN
  3. jannatulakhi1123@gmail.com : Jannatul akhi Akhi : Jannatul akhi Akhi
  4. msibd24@gmail.com : Saiydul Islam : Saiydul Islam
  5. Mofazzalhossain8@gmail.com : Mofazzal Hossain : Mofazzal Hossain
  6. saidur.yc@hotmail.com : Saidur Rahman : SAIDUR RAHMAN
  7. jim42087070@gmail.com : Lokman Hossain : Lokman Hossain
  8. galib.ip2@gmail.com : Al Galib : Al Galib
  9. sikhanphd3@gmail.com : Shafiqul Islam : Shafiqul Islam
বশেমুরবিপ্রবিঃ সাংবাদিকের উপর হামলা, বিচার মেলেনি এক বছরেও। - Shadhin Bangla 16
আজ ২৯শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ সময় রাত ১০:৩১
শিরোনাম
প্রিয়নবী (সা.) এর অবমাননা কোনো মুসলমান সহ্য করতে পারে না –আল্লামা হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী ময়মনসিংহ জেলার ঈশ্বরগঞ্জের আঠারবাড়ীতে মহাস্মসান এর ভিওিপ্রস্থ স্থাপন। বাগেরহাটে এপেন্ডিসাইটিস অপারেশনে যুবকের মৃত্যু নিয়ে গুঞ্জন কুড়িগ্রামে পৈত্রিক সম্পতি রক্ষায় কৃষক পরিবারের সংবাদ সম্মেলন গলাচিপায় আন্তঃজেলা সীমানা নির্ধারণ ও আবুল কাসেম হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন ফ্রান্সে বিশ্বনবীর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে ঝালকাঠিতে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ পাবনায় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরিদর্শনে স্বাস্থ্য মহাপরিচালক ১৫ হাজার পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার-১ শরণখোলায় মটরবাইক দুর্ঘটনায় গৃহবধু নিহত বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ গ্রেফতার ধর্ষক

বশেমুরবিপ্রবিঃ সাংবাদিকের উপর হামলা, বিচার মেলেনি এক বছরেও।

বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি
  • আপডেটের সময় : বুধবার, সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০,
  • 48 দেখুন
119476839 314913616456560 2727737455772597002 n বশেমুরবিপ্রবিঃ সাংবাদিকের উপর হামলা, বিচার মেলেনি এক বছরেও।

বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ গতবছরের (২০১৯) ১৬ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) ক্যাম্পাস অভ্যন্তরেই হামলা র শিকার হয়েছিলেন দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশের তৎকালীন বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি শামস জেবিন।

কিন্তু সেই হামলার এক বছর পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় জড়িতদের কাউকেই বিচারের আওতায় আনা হয় নি।

হামলার শিকার হওয়া শামস জেবিন বলেন, বশেমুরবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতির অপর এক সদস্যের বহিষ্কারের প্রতিবাদ জানানোর জেরে পরীক্ষার হল থেকে ডেকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়েরই কয়েকজন শিক্ষার্থী তার ওপর হামলা করেছিলো। ওইসময় হামলাকারীরা বলেছিলো, তৎকালীন উপাচার্য প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন তাদেরকে নির্দেশ দিয়েছে শামস জেবিনকে তুলে নিয়ে যেতে।

পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। ঘটনা ঘটার পর ওই দিনই পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছিল। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান অনুষদের ডিন আব্দুর রহিম খানকে প্রধান করে গঠিত তদন্ত কমিটিকে পাঁচ দিনের মধ্যে রিপোর্ট প্রদানের নির্দেশ দেয়া হয়। কিন্তু একমাস পেরিয়ে গেলেও উক্ত তদন্ত কমিটি রিপোর্ট প্রদান করতে ব্যর্থ হয়।

এরপর ২০ অক্টোবর পুনরায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট উক্ত তদন্ত কমিটির প্রধান ছিলেন সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন রফিকুন্নেসা আলী এবং সদস্য সচিব ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. নূরউদ্দিন আহমেদ। তবে দ্বিতীয়বার তদন্ত কমিটি গঠনের পরও এক বছর পার বিচারের বিষয়টি তদন্ত কমিটিতেই আটকে আছে।

হামলার শিকার শামস জেবিন আরো জানান, তিনি তদন্ত কমিটির নিকট তার বক্তব্য প্রদান করেছেন এবং মূল হামলাকারীদের পরিচয়ও জানিয়েছেন। এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. নূরউদ্দিন আহমেদ জানিয়েছেন, “এ ঘটনার তদন্ত প্রতিবেদন অফিসে রয়েছে। সাংবাদিকের-উপর-হামলা

শৃঙ্খলা বোর্ডের পক্ষ থেকে প্রতিবেদন চাওয়া হলেই আমি প্রতিবেদনটি উপাচার্যের নিকট প্রদান করবো এবং শৃঙ্খলা বোর্ড প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে।” অবশ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান সমস্যাকে ইঙ্গিত করে বশেমুরবিপ্রবির সাবেক উপাচার্য (রুটিন দায়িত্ব) প্রফেসর ড. মোঃ শাহজাহান বলেন, “রুটিন দায়িত্ব গ্রহণের পর বিশ্ববিদ্যালয়ের একের পর এক সমস্যা সামনে আসায় এবং এরপরই ছুটি শুরু হওয়ায় বিষয়টি নিয়ে কাজ করা হয় নি।

” দীর্ঘ একবছরেও কেন মেলেনি বিচার,কেনই বা হামলাকারীদের ব্যাপারে কোনো বিচার আজও নয় সে বিষয়ে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বশেমুরবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতির সদস্যরা। ঘটনাকে ন্যাক্কারজনক উল্লেখ করে একুশে টিভি অনলাইনের বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি মাইনউদ্দিন পরান বলেন, “সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যখন ফাতেমা-তুজ-জিনিয়া কে বহিষ্কার করা হলো, তখন বশেমুরবিপ্রবি সাংবাদিক সমিতির বেশ কয়েকজন সদস্য তার পাশে দাড়িয়েছিলো যাদের মধ্যে শামস জেবিন ছিলেন অন্যতম।

আর এ কারণেই তার ওপর ন্যাক্কারজনক হামলা চালায় তৎকালীন ভিসির লালিত বাহিনী। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয় হলো হামলার ১ বছর পার হলেও এখনও সেই চিহ্নিত অপরাধীদের বিরুদ্ধে কোন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি, যা বিচারহীনতার সংস্কৃতিরই নামান্তর।

” পরান আরো বলেন,” আমরা চাই হামলাকারীদের শাস্তির আওতায় আনা হোক এবং ক্যাম্পাসে স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিবেশ নিশ্চিতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করুক।” উল্লেখ্য, স্বৈরাচারী আচরণ এবং দুর্নীতির অভিযোগে প্রবল ছাত্র আন্দোলনের পর ২০১৯ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর পদত্যাগ করেন বশেমুরবিপ্রবির সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিন।                                                                                                     মুক্তিযোদ্ধের চেতনায় সত্য প্রকাশে স্বাধীন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

https://shadhinbangla16.com © All rights reserved © 2020

theme develop by shadhinbangla16.com
themesbazarshadinb16
bn Bengali
X