1. mahbubur2527@gmail.com : Mahbubur Rahman Sohel : Mahbubur Rahman Sohel
  2. saidur.yc@gmail.com : SAIDUR RAHMAN : SAIDUR RAHMAN
  3. jannatulakhi1123@gmail.com : Jannatul akhi Akhi : Jannatul akhi Akhi
  4. msibd24@gmail.com : Saiydul Islam : Saiydul Islam
  5. Mofazzalhossain8@gmail.com : Mofazzal Hossain : Mofazzal Hossain
  6. saidur.yc@hotmail.com : Saidur Rahman : SAIDUR RAHMAN
  7. jim42087070@gmail.com : Lokman Hossain : Lokman Hossain
  8. galib.ip2@gmail.com : Al Galib : Al Galib
  9. sikhanphd3@gmail.com : Shafiqul Islam : Shafiqul Islam
বঙ্গবন্ধু জীবনের শেষ সপ্তাহে যাদের সময় দেন। - Shadhin Bangla 16
আজ ২৫শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ সময় ভোর ৫:৩৭
শিরোনাম
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে আজ মহাঅষ্টমী বৃষ্টির কারনে ভক্তসমাগম কম রাজাপুরে শ্রদ্ধেয় শাহ আলম স্যারের স্মরণসভা ও দোয়া অনুষ্ঠিত ময়মনসিংহের গৌরীপুরে চেয়ারম্যানের নির্দেশেই কুপিয়ে হত‍্যা করা হয় মৌলভীবাজারে মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষার প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন রাজনগরে পূজা মন্ডপের নিরাপত্তায় প্রতিরক্ষা বাহিনী মোতায়েন ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে তেলের জন‍্য জ্যান্ত ডলফিনকে কেটে টুকরো করা হয়। বাগেরহাটের শরণখোলায় মুক্তিযোদ্ধা এমএ কাদেরকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন। সন্তানের ঘটানো শ্লীলতাহানি ঢাকতে মাদ্রাসা পরিচালকের বিরুদ্ধে কুরুচিপুর্ণ অভিযোগ বাবার। ‘রাবি শিক্ষার্থীর নৃশংস হত্যার দ্রুত বিচার না হলে কঠোর আন্দোলন’ মানববন্ধনে শিক্ষার্থীরা। গলাচিপায় বিভিন্ন পূজা মন্ডপে প্রশাসনের মাস্ক বিতরণ

বঙ্গবন্ধু জীবনের শেষ সপ্তাহে যাদের সময় দেন।

রাহাদ সুমন,বানারীপাড়া(বরিশাল)প্রতিনিধি
  • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৩, ২০২০,
  • 53 দেখুন
sheikh mujib rahman বঙ্গবন্ধু জীবনের শেষ সপ্তাহে যাদের সময় দেন।

সোহেল সানি
রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনের শেষ সপ্তাহটি কেমন ছিল? কারা ওই এ সপ্তাহের সাক্ষাতপ্রার্থী  ছিলেন? অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে রাষ্ট্রপতির শেষ সপ্তাহের কর্মসূচি। ওই এক সপ্তাহে   রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন একাধিক রাষ্ট্রদূত, কয়েকজন মন্ত্রী- আমলা, নেতা এবং তিন বাহিনী প্রধান।

উল্লেখ্য, ১৯৭৫ সালের ২৫ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি হিসাবে দায়িত্বগ্রহণের পর বঙ্গবন্ধুর থাকার কথা সরকারি বাসভবন    বঙ্গভবনে। কিন্তু তিনি এরকম অরক্ষিত নিজের বাসভবন ধানমন্ডির বত্রিশ নম্বর সড়কের নম্বর বাড়িটিতেই বসবাস করতেন। এ বাড়ি থেকেই প্রতিদিন সকাল নয়টায় আসতেন গণভবনে।

একটি ছোট সুসজ্জিত হাউস গার্ড দল রাষ্ট্রপতিকে অভ্যর্থনা জানাতো। সে সময়ে গণভবনের (পরবর্তীতে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়) পেছনের প্রশস্ত দরজা দিয়ে রাষ্ট্রপতি উপরে যেতেন। দোতলাতেই অফিসকক্ষে বসে দৈনন্দিন কাজকর্ম সম্পন্ন করতেন। দুপুরে খাওয়ার পর একটু বিশ্রাম নিতেন।

বিকেল চারটার দিকে হাঁটতেন গণভবন – প্রাঙ্গণে লেকের ধারে। ওখানে চেয়ারে বসে মাছ দেখতেন এবং নিজ হাতে খাবার ছিটিয়ে দিতেন। তাঁর নির্দেশেই ওই লেকে  প্রচুর মাছ ছাড়া হয়েছিল। ওই সময়টা  বঙ্গবন্ধু অনেকটা রিল্যাক্সড মুডে থাকতেন। অনেক নেতা তখন হাজির হয়ে বঙ্গবন্ধুর সান্নিধ্যলাভ করতেন। রাত নয়টা পর্যন্ত গণভবনে কাটাতেন।

সোমবার আগেই চলে যেতেন। যাতে ওদিন টিভিতে বাংলা সিনেমা দেখতে পারে গণভবনের কর্মচারীরা।  বঙ্গবন্ধুর জীবনের শেষ সপ্তাহের দৈনিক কর্মসূচি তুলে ধরা হলে তাঁর কর্মময় জীবন সম্পর্কে একটা ধারণা পাওয়া যাবে। প্রতিনিয়ত আসতেন ডিআইজি স্পেশাল ব্রাঞ্চ।

সামরিক সচিব কর্নেল জামিল ছাড়াও প্রায় প্রতিনিয়ত  পররাষ্ট্র সচিব ফখরুদ্দিন আহমেদ রাষ্ট্রপতির মুখোমুখি হতেন। প্রতিদিন সকাল নয়টায় রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গণভবনে প্রবেশ করতেন। যথারীতি সুসজ্জিত হাউস গার্ড দলের অভিবাদন গ্রহণ করে দোতলায় নিজ অফিস কক্ষে প্রবেশ করতেন।

৭ আগস্ট বৃহস্পতিবার
প্রথমেই সাক্ষাৎ করেন পররাষ্ট্র সচিব ফখরুদ্দিন আহমেদ। সাড়ে নয়টায় সাক্ষাৎ করেন সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত এটিনি সতার। সকাল সাড়ে দশটায় প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক নূরুল ইসলাম চৌধুরী প্রায় আধাঘন্টা ধরে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে কথা বলেন। এগারোটায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন জেনেভা কনভেনশনে যোগদানের সফর কর্মসূচি সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন।

দুপুর বারোটার দিকে বঙ্গবন্ধু সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন বানিজ্য ও পাট প্রতিমন্ত্রী দেওয়ান ফরিদ গাজী।  বিকাল সাড়ে পাঁচটায় দেখা করেন ভারতের হাইকমিশনার সমর সেন।  সন্ধ্যা সোয়া ছয়টায় ৭ আগস্ট সর্বশেষ সাক্ষাতপ্রার্থী ছিলেন কাজী মোজাম্মেল হক এমপি। এর দশমিনিট আগে সাক্ষাৎ করেন জাতীয় কৃষক লীগের ওয়ার্কিং কমিটির সদস্য আব্দুল আউয়াল।

৮ আগস্ট শুক্রবারসকাল সাড়ে দশটায়  রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন রেলওয়ে প্রতিমন্ত্রী। এক ঘন্টা পর সাক্ষাৎ করে  বিদ্যুৎ, মৎস্য, বন,  পানি ও বন্যা নিয়ন্ত্রণ মন্ত্রী আব্দুর রব সেরনিয়াবাত (বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি)। ওদিন নৌ ও জাহাজ চলাচল মন্ত্রী হিসাবে বাকশাল সরকারে যোগদান করেন সাবেক রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবু সাইদ চৌধুরী।

বিকেল সাড়ে পাঁচটায় তিনি শপথ গ্রহণ করেন। বিচারপতি আবু সাইদ চৌধুরী ১৯৭৪ সালে রাষ্ট্রপতি পদ ছেড়ে দিয়ে পূর্ণ মন্ত্রীর মর্যাদায় বৈদেশিক দূত হিসাবে দায়িত্বপালনরত ছিলেন।

৯ আগস্ট শনিবার সকাল দশটায় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গণভবনে আসেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ড . স্যামষ্ট্রীট। এগারোটার দিকে সাক্ষাৎ করেন প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক নূরুল ইসলাম চৌধুরী ও সেনাবাহিনী প্রধান মেজর জেনারেল কে এম শফিউল্লাহ বীর উত্তম।

সন্ধ্যা ছয়টায় বাকশালের  অন্যতম সম্পাদক ও অধুনালুপ্ত আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জিল্লুর রহমান এমপি। সোয়া ছয়টার দিকে সাক্ষাৎ করেন তৎকালীন এর্টনী জেনারেল।

১১ আগস্ট সোমবার  রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সকাল সাড়ে এগারোটায় সাক্ষাৎ করেন গিয়াস উদ্দিন এবং সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় দ্বিতীয় কর্মকমিশনের সদস্য আযহারুল ইসলাম।

১২ আগস্ট মঙ্গলবার  সকাল দশটায় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন অর্থমন্ত্রী ড. আজিজুর রহমান মল্লিক। সন্ধ্যা ছয়টায় কমনওয়েলথ সেক্রেটারিয়েটের অধ্যাপক এ এফ এ হোসেন।

১৩ আগস্ট বুধবার  সকাল এগারোটায় রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন যুক্তরাষ্ট্রে নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত এম আর সিদ্দিকী। সন্ধ্যা ছয়টায় ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ এবং সাড়ে ছয়টায় সাক্ষাৎ করেন চাঁদপুরের এম এ রব।

১৪ আগস্ট বৃহস্পতিবার  এই দিনটিই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনের শেষ কর্মদিবস।
এদিন রাষ্ট্রপতি ব্যস্ততম দিন পার করেন। সকাল পৌনে দশটায় দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রপতি পার্ক চুং হির বিশেষ দূত সাক্ষাৎ করেন।

সকাল দশটায় আসেন নৌ বাহিনী প্রধান মোশাররফ হোসেন খান। সাড়ে দশটায় সাক্ষাৎ করেন তথ্য ও বেতার মন্ত্রী এম কোরবান আলী। এরপর পরই এগারোটায় দিকে এক সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক নূরুল ইসলাম চৌধুরী ও বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার ভাইস মার্শাল এ কে খন্দকার বীর উত্তম।

সাড়ে এগারোটার দিকে সদ্য বাকশালে যোগদানকারী পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী লীগ সরকারের মুখ্যমন্ত্রী আতাউর রহমান খানের দুই মেয়ে। লন্ডনে চিকিৎসাধীন প্রবীন নেতা আতাউর রহমান খানের চিকিৎসার খোঁজ খবর নিতেই রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর বাসায় বার্তা পাঠান।

এ কারণে তাঁর দুই কন্যা দেখা করতে আসেন রাষ্ট্রপতির সঙ্গে।
পৌনে ছয়টায় আসেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. আবদুল মতিন চৌধুরী। ১৫ আগস্ট রাষ্ট্রপতির সম্মানে অনুষ্ঠিতব্য সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পর্কে অবহিত করার জন্য উপাচার্যের এ সাক্ষাৎ। সন্ধ্যা ছয়টায় সর্বশেষ সাক্ষাৎ করেন শিক্ষামন্ত্রী  ড. মুজাফফর আহমদ চৌধুরী ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব।

তাঁরা মূলত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুষ্ঠানের যাবতীয় কর্মসূচি সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন।
এর আগে দুপুরে কৈ মাছ দিয়ে ভাত খান। রাষ্ট্রপতি খাবার খেয়ে একটু বিশ্রাম করেন। তারপর বিকেল সাড়ে চারটার দিকে গণভবন প্রাঙ্গণের লেকের ধারে যান।

একটু পর এসে হাজির হন তথ্য ও বেতার প্রতিমন্ত্রী তাহের উদ্দিন ঠাকুর। পাশে থাকা চেয়ারে বঙ্গবন্ধুর তাকে বসতে বলেন। ওই সময় লেকে সাঁতার শিখছিল রাষ্ট্রপতির শিশুপুত্র শেখ রাসেল। সাঁতার প্রশিক্ষক একজন নায়েক সুবাদার।  বঙ্গবন্ধু রাসেলকে উদ্দেশ্য করে বললেন,  “উনি তোমাকে সাঁতার শেখাচ্ছেন সেজন্য ওনাকে তোমার তো কিছু উপহার দেয়া উচিত।”

তাহের উদ্দিন ঠাকুর রাসেলকে ধরে একটু আদর করে চলে যান। এর পর পরই আসেন শিক্ষা মন্ত্রী ড. মোজাফফর আহমদ চৌধুরী ও শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ভারপ্রাপ্ত অতিরিক্ত সচিব মোকাম্মেল হক। মোকাম্মেল হক রাষ্ট্রপতিকে একটি মানপত্র দেখান।

যা পরের দিন ১৫ আগস্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীরা তাঁর সম্মানে পাঠ করবে। একটু পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. আবদুল মতিন চৌধুরীও আসেন। বঙ্গবন্ধু তাঁর ভাষণের বিষয়বস্তু সম্পর্কেও তাদের অবহিত করেন। সর্বশেষ হাজির হন মন্ত্রিসভার অন্যতম সদস্য আব্দুর রব সেরনিয়াবাত।

রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব কর্নেল জামিল ইতিমধ্যে ডিজিএফআইয়ের প্রধান হয়ে গেছেন। রাষ্ট্রপতির অত্যন্ত স্নেহভাজন ফরাসউদ্দীন আহমদ ও মনোয়ারুল ইসলাম উচ্চশিক্ষার জন্য বিদেশ যাচ্ছিলেন। এজন্য ১৪ আগস্ট রাষ্ট্রপতির সচিবালয়ের কর্মকর্তারা একটি নৈশভোজের আয়োজন করেছিলেন।

বঙ্গবন্ধু সাড়ে আটটার দিকে নিজ বাসভবনের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। তাঁর সঙ্গে ছিলেন একান্ত সচিব রেজাউল হায়াত।

গণভবনে যারা রাষ্ট্রপতি নির্দেশে কর্মতৎপর ছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম হলেন, এইচ টি ইমাম,  ড. আব্দুস সামাদ, আব্দুর রহিম, কর্নেল জামিল, ফরাশউদ্দিন, ড. মশিউর রহমান, ড. সৈয়দ আব্দুস সামাদ, ড. ফজলুল হাসান ইউসুফ, আবদুল করিম, সৈয়দ রেজাউল হায়াত, নূরুল ইসলাম,

মনোয়ারুল ইসলাম, আব্দুল তোয়াব খান, আবদুল মালেক, মকবুল হোসেন, মাহফুজুস সোবহান, সৈয়দ আমিনুর রহমান প্রমুখ। এই ১৪ আগস্ট দিবাগত রাতে অর্থাৎ পনেরো আগস্ট সেনাবাহিনীর উচ্চ বিলাসী ও উচ্ছৃঙ্খল একদল নরপশুর হাতে প্রায় সপরিবারে নিহত হন রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর

https://shadhinbangla16.com © All rights reserved © 2020

theme develop by shadhinbangla16.com
themesbazarshadinb16
bn Bengali
X